ওষুধের ব্যবহার

কি ওষুধ খেলে বাচ্চা হয় না

অনেকেই অবাঞ্ছিত প্রেগনেন্সি নিয়ে নানারকম চিন্তায় পড়ে থাকেন এবং অনেক মানুষ জন্মনির্ধারণ ট্যাবলেট সম্পর্কে কিছুই জানে না যার ফলে তাদের বেবি কনসিভ হয়ে যায়। তাই আজকে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে নিয়ে এসেছি অবাঞ্চিত প্রেগনেন্সি থেকে রক্ষা পাওয়ার বিষয় আপনারা এখান থেকে জানতে পারবেন সে সকল ওষুধের নাম যেগুলো খেলে আপনার বাচ্চা হবে না বা আপনি কোন রিক্সের মধ্যে থাকবেন না। 

অনেক সময় গ্রামের কোন মানুষ এ সকল বিষয়ে সচেতন না হওয়ার কারণে তাদের অনেক অনেক বাচ্চা হয় এবং দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে সেজন্য এই সকল বিষয়গুলোর ওপর বিশেষ নজর দিতে হবে এবং সতর্ক থাকতে হবে। বর্তমানে অবাঞ্ছিত প্রেগনেন্সির জন্য নানা রকমের ওষুধ রয়েছে যেগুলো সেবনের মাধ্যমে আপনাদের প্রেগনেন্ট হওয়া থেকে রক্ষা করা যায়। এ সকল ওষুধের কোন সাইড ইফেক্ট নেই সেজন্য নিরাপদ ভাবে আপনারা ব্যবহার করতে পারেন তবে অতিরিক্ত ভাবে যদি জন্মনিধারক কোন ওষুধ সেবন করা যায় তাহলে নানা রকম ক্ষতি হতে পারে যেমন জরায়ুতে সমস্যা কিডনিতে সমস্যা লিভারের সমস্যা দেখা দেয় সেজন্য এ সকল ওষুধ সেবন করলেও নিয়ম মেনে সেবন করতে হবে তা না হলে নানা রকম সমস্যা হতে পারে। 

তবে আপনারা এই সকল বিষয়ে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করলে সব থেকে বেশি ভালো হয় কারণ ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন এবং পরামর্শ ছাড়া কোন ওষুধ সেবন করা উচিত নয় সেজন্য যে কোন সমস্যার হলে আপনারা ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করার বেশি চেষ্টা করবেন। তবে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে যে সকল ওষুধের নাম দিতে চলেছি সেগুলোর জন্য আপনাকে আমাদের ওয়েবসাইটে লেখাগুলো মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে এবং এই সকল ওষুধ গুলো আপনি যে কোন ফার্মেসিতেই সংগ্রহ করতে পারবেন যা গ্রহণ করার ফলে আপনি একদম নিরাপদ থাকবেন।  

তবে আপনাকে বেশ কিছু সঠিক তথ্য জানতে হবে তাহলে আপনাকে আর এই সকল বাচ্চা না হওয়ার ওষুধ খেতে হবে না। প্রথমে আপনাকে জানতে হবে একটি সহজ বিষয় কোন সময় কনসিভ করা সম্ভাবনা সব থেকে বেশি থাকে সেটা আপনাকে জানতে হবে যখন আপনি এই সকল বিষয়গুলো জানবেন তখন আপনার বেবি কনসিভ হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকবে। আপনি যদি মাসের মধ্যে ওই সকল দিনগুলো বাদ দেন তাহলে আপনি নিরাপদ ভাবে চলতে পারবেন আপনার কোন  ওষুধের প্রয়োজন পড়বে না। 

তবে আপনি যদি পার্মানেন্ট বাচ্চা নিতে না চান তাহলে আপনাকে পার্মানেন্ট কিছু ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে যেগুলো ব্যবহার করলে পাঁচ থেকে সাত বছর আপনার বাচ্চা হবে না এর জন্য আপনাকে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে এবং ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে। এই সকল প্রসেসগুলো যদি আপনি অ্যাপ্লাই করেন তবে শারীরিক কোন ক্ষতি ছাড়াই আপনি বেবি কনসিভ থেকে দূরে থাকতে পারবেন। বর্তমানে নানা রকম পিল রয়েছে যেগুলো খেলে বাচ্চা হয় না এই সকল পিল সম্পর্কে আপনাকে সঠিকভাবে জানতে হবে এবং সঠিকভাবে ব্যবহার করতে হবে তাহলে আপনি বেবি কনসিভ থেকে দূরে থাকতে পারবেন। 

বিভিন্ন রকমের গাইনি ডাক্তার রয়েছে যারা এ সকল বিষয়ে অনেক বেশি পারদর্শী এবং অনেক মানুষ রয়েছে যারা দীর্ঘদিন মেয়াদী এই সকল প্রসেস গুলো গ্রহণ করে থাকে তারা নিরাপদ ভাবে চলাফেরা করতে পারে। যখন আপনি মনে করবেন যে আপনার আর কোন সন্তানের প্রয়োজন নেই তখন আপনি এই সকল পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করতে পারেন। 

কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া বিহীন যখন আপনি এই সকল কাজগুলো করবেন তখন নিশ্চিন্তে থাকতে পারবেন। সেজন্য আপনি কোন কিছুর বিষয় সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করেন এবং ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী চলতে থাকেন তাহলে দেখবেন সুস্থ থাকতে পারবেন এবং কোন বিষয় নিয়ে আপনাকে টেনশনে পড়তে হবে না। 

আরো দেখুন

সম্পর্কিত লেখা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *