AA রক্ত সংক্রান্ত

পায়খানার সাথে রক্ত পড়া কিসের লক্ষণ

পায়খানার সাথে বা মলের সঙ্গে রক্ত পড়ার লক্ষণ হতে পারে পায়েলস। এছাড়াও আরো অনেক কারণ রয়েছে যেগুলোর মাধ্যমে মলদ্বার দিয়ে রক্ত বের হয়। এ সকল কারণগুলো জানতে হলে আপনাকে আমাদের ওয়েবসাইটে আসতে হবে এবং এই লেখাগুলো শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে তাহলে আপনি এ বিষয়ে অনেক কিছু তথ্য জানতে পারবেন। এ সকল তথ্যগুলো আপনার জানা থাকলে আপনি যে কোন সমস্যার জন্য সঠিকভাবে জ্ঞান অর্জন করতে পারবেন। 

অনেক সময় রক্তের রং দেখে ধারণা করা যায় কোন রোগ হতে পারে যেমন কালো দুর্গন্ধযুক্ত পায়খানা হলে এটা সাধারণত আমাশা বা ডায়রিয়া ধরনের কোন সমস্যা হতে পারে। আবার কাল যে আমযুক্ত রক্ত সঙ্গে পেট মোচড় দেয়া হলে এটা ক্যান্সারের লক্ষণ হতে পারে। মানুষের ক্যান্সার হলে অনেক রকম লক্ষণ দেখা দেয় যেমন মলদ্বারের রক্ত আবার নাক মুখ দিয়ে রক্ত। সেজন্য যে কোন সমস্যা হলে ঘরে বসে না থেকে যত দ্রুত সম্ভব ডাক্তারের কাছে যেতে হবে এবং ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। তবে এ সকল লক্ষণ দেখা দেয়ার পরে আপনাকে দ্রুত পরীক্ষানিরীক্ষা করতে হবে কারণ সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় করা না গেলে আপনার রোগ ভালো হবে না। 

তবে একটা বিষয় মনে রাখবেন ভুল চিকিৎসার জন্য কিন্তু মানুষের মৃত্যু হতে পারে আবার বলছি কি সেই রোগ বৃদ্ধি পেতে পারে সেজন্য সব সময় সব দিকে ভালোভাবে খোঁজখবর নিয়ে চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। যখন আপনি বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের মাধ্যমে চিকিৎসা করুন করবেন তখন আপনার রোগ তাড়াতাড়ি ভালো হয়ে যাবে এবং আপনি সুস্থ ভাবে জীবন যাপন করতে পারবেন সে জন্য আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে। মলদ্বারের সাথে বা পায়খানার সাথে রক্ত পড়ার এই সমস্যাটি বেশিরভাগ মহিলারা লুকিয়ে রাখেন বা সহজে ডাক্তারের কাছে গিয়ে বলতে চায় না যার মাধ্যমে রোগ আরো বৃদ্ধি পেয়ে যায় এবং এমন অবস্থায় চলে যায় যা অপারেশন ছাড়া ভালো করা সম্ভব হয় না। 

মলদ্বারের রক্তপাতের মতো বিষয় চেপে যান অনেক মানুষ তবে এটা ডাক্তারের কাছে খুলে না বললে আরো অনেক রকম সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে যেমন ক্যান্সার হয়ে যেতে পারে। পায়খানার সাথে রক্ত বের হওয়ার বেশিরভাগ লক্ষণ হয় পায়েলস আর বর্তমানে পাইলসের অনেক রকম চিকিৎসা রয়েছে। অস্ত্র পাচারের মাধ্যমে পাইলসের অপারেশনের ব্যবস্থা রয়েছে যার মাধ্যমে মানুষ খুব সহজে সুস্থ হয়ে উঠতে পারে কোন ব্যথা বা যন্ত্রণা ছাড়াই। 

বর্তমানে প্রতিটা হাসপাতালে এই রোগের চিকিৎসা প্রদান করা হয় তবে মানুষ নানারকম ভয় পেয়ে এবং নানা রকম চিন্তা করে এই রোগের চিকিৎসা সহজে করতে চায় না। অনেক সময় গ্রামের মানুষরা ডাক্তারের কাছে না গিয়ে বিভিন্ন রকম কবিরাজের কাছে যায় এবং গাছ খেয়ে এই সকল সমস্যা ভালো করতে চায় তবে তাদের এ সকল সমস্যা ভালো তো হয় না বরঞ্চ তারা আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাই এই ধরনের কঠিন রোগ ভালো করতে হলে আপনাকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

যদি কোন মানুষের এই সমস্যার জন্য অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয় তাহলে সে মানুষটি আস্তে আস্তে অনেক বেশি দুর্বল হয়ে পড়বে। সে শরীরে কোন বল পাবে না এবং রক্তশূন্যতা ভোগ করবে আবার দেখতে  ফ্যাকাশে রঙের হয়ে যাবে। কারণ রক্তের মাধ্যমে মানুষের শরীর চলাচল করতে পারে যদি সেই রক্ত শরীর থেকে বের হয়ে যায় তাহলে মানুষের শরীর চলবে কিভাবে। অনেক সময় এই রোগটি ভালো হয়ে যায় মানুষের খাদ্য অভ্যাস পরিবর্তন এর ফলে। 

মানুষ যখন অতিরিক্ত নিয়মের বাইরে থাকে তখন এই ধরনের জটিল রোগ শরীরে দেখা দেয় তবে যখনই মানুষ খাদ্য ভাস পরিবর্তন করে এবং কিছু নিয়ম মেনে চলে তখন আবার সে সুস্থ থাকতে পারে। কিন্তু কোন ব্যথাবেদনা ছাড়া রক্তপাত কে গুরুত্ব দিতে হবে। একটা বিষয় মনে রাখবেন বেশিরভাগ ক্যান্সারে প্রাথমিকভাবে ব্যথা থাকে না চিকিৎসক পায়ুপথে আঙ্গুল দিয়ে পরীক্ষা করতে চাইলে বাধা দেবেন না বেশিরভাগ পায়ুপথে ক্যান্সার মলদ্বার এর কাছে হয়। তাই যদি আপনি সুস্থ থাকতে চান তবে ডাক্তারের পরামর্শ এবং চিকিৎসা আপনাকে মেনে চলতে হবে।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত লেখা

Leave a Reply

Your email address will not be published.