ওষুধ খাওয়ার নিয়ম

হোমিওপ্যাথি ওষুধ খাওয়ার নিয়ম

আমরা অনেক সময় এলোপ্যাথি ওষুধ বাদ দিয়ে হোমিওপ্যাথি ওষুধ খায় কারন অনেকেরই বিশ্বাস যে হোমিওপ্যাথি ওষুধ ছাড়া তার কোন রোগ ভালো হবে না। তবে হোমিওপ্যাথি ওষুধ খাওয়ার কিছু নিয়ম আছে যেগুলো না খেলে কখনোই আপনার রোগ ভালো হবে না কিন্তু অনেক সময় মানুষ এই সকল নিয়মগুলো না বুঝে ওষুধ খেয়ে ফেলে যার ফলে তাদের দীর্ঘদিন ওষুধ খাওয়ার প্রয়োজন পড়ে। হোমিওপ্যাথি ওষুধ খেতে শুরু করলে বেশ কয়েক মাস একসাথে খেতে হয় তাছাড়া এই ওষুধ কাজ করতে দেরি করে। 

তবে অনেকে বিশ্বাস করে এলোপ্যাথির থেকে হোমিওপ্যাথি তাদের জন্য বেশি গুরুত্বপূর্ণ এবং খুব তাড়াতাড়ি তাদের রোগ ভালো করে সেজন্য অনেক মানুষ হোমিওপ্যাথি ওষুধ খায়। হোমিওপ্যাথি ওষুধ খাওয়ার যে সকল নিয়মগুলো আপনাকে মেনে চলতে হবে তা হচ্ছে আপনি যখন ওষুধ খাবেন তখন কাগজের ওপর ওষুধ খেলে তারপরে খাওয়া শুরু করবেন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ওষুধ খাওয়া যাবেনা সেজন্য যখন আপনি হোমিওপ্যাথি ওষুধ গ্রহণ করবেন তখন কোন নেশা জাতীয় দ্রব্য গ্রহণ করা যাবে না তাহলে ওষুধ কাজ করবে না। ওষুধ খাওয়ার ১০ মিনিট আগে এবং পরে কোন খাবার খাওয়া যাবে না। 

যদি আপনি কোন খাবার খেয়ে ওষুধ খান তাহলে সেই ওষুধটি কাজ কম করবে সেজন্য সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে এবং সবকিছু জানতে হবে।অনেক সময় হোমিওপ্যাথি ওষুধ খাওয়ার জন্য সবাই হাতের তালুতে ওষুধ ঢেলে নাই এবং তারপরে খাই কিন্তু এটা করা যাবে না। কারণ যখন আপনি হাতের তালুতে ওষুধ নিবেন খাওয়ার জন্য ঠিক তখনই ওষুধের মধ্যে যেগুলো থাকে সেগুলো খুব তাড়াতাড়ি বাতাসের মাধ্যমে উড়ে যায় যার ফলে পর্যাপ্ত পরিমাণে পুষ্টিগুণ আপনার শরীরে প্রবেশ করছে না সেজন্য আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে এবং এই নিয়মগুলো মেনে ওষুধ খেতে হবে। ওষুধ খাওয়ার পরে কোন সময় ঢাকনা খুলে রাখা যাবে না সবসময় ঢাকনা আটকে রাখতে হবে এবং ঠান্ডা ও শীতল অন্ধকার জায়গাতে ওষুধের বোতলটি রাখতে হবে। 

অনেক সময় একই রকম রোগ হলে অন্য কারো ওষুধ অনেকে খায় কিন্তু এটা করা উচিত নয় কারণ সবার শরীরে এক রোগ হলেও এক ওষুধে রোগ ভালো হয় না সেজন্য কারো ওষুধ কারো খাওয়া প্রয়োজন নেই শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করে ওষুধ খেতে হবে। কারণ হোমিওপ্যাথি ওষুধ দেখতে একই রকম তাই বলে যে সবার এক ওষুধ খেলে সব রোগ সারবে এমনটা নয়। হোমিওপ্যাথি ওষুধের বতল সবসময় রোড থেকে এবং আগুন থেকে দূরে রাখতে হবে তা না হলে ওষুধের পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়ে যাবে এবং ওষুধ খেলে কোন কাজ হবে না। আবার আপনি যখন হোমিওপ্যাথি ওষুধ সেবন করবেন তখন আপনি অ্যালোপ্যাথি কোন ওষুধ গ্রহণ করতে পারবেন না কারণ দুইটা ওষুধ একসাথে গ্রহণ করলে আপনার কোন রোগ ভালো হবে না বরঞ্চ আপনার নানা রকম সমস্যা বাড়বে সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে। 

আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে আপনাদের জন্য এবারে নিয়ে এসেছি এই সকল তথ্য গুলো যেগুলো জানা আপনার খুবই প্রয়োজন এবং যেগুলো জানলে আপনি খুব সহজে সঠিক চিকিৎসা গ্রহণ করে সুস্থ হতে পারবেন।অনেক মানুষ আছেন যারা নিয়মিত হোমিওপ্যাথি ওষুধ খাই কিন্তু তারা কোন নিয়ম মানে না যার ফলে তাদের রোগ সারতে বেশ সময় লাগে। আবার অনেকেই এই সকল নিয়মগুলো জানেও না সেজন্য আপনারা আমাদের ওয়েবসাইটে চলে আসুন এবং ঘরে বসে আপনারা সকল তথ্য পেয়ে যাবেন। 

আমরা আপনাদের সুবিধার জন্যই এই সকল আয়োজনগুলা করে থাকি কারণ অনেক সময় এই ছোট ছোট বিষয়গুলো না জানার কারণে নানা রকম হয়রানি শিকার হতে হয় এবং নানা রকম ক্ষতি হয়ে যায় সেজন্য সতর্ক থাকতে হবে। এই সকল বিষয়গুলো আপনি যে কারো কাছে গিয়ে জানতে পারবেন না তাই আপনাকে আসতে হবে আমাদের ওয়েবসাইটে। আপনি ঘরে বসেই সকল সঠিক তথ্য পেয়ে যাবেন শুধুমাত্র আমাদের ওয়েবসাইটে তাই আর দেরি না করে চলে আসুন আমাদের ওয়েবসাইটে এবং সকল তথ্য সংগ্রহ করে নিজের কাছে রেখে দিন। পরিশেষে একটি কথাই বলতে চাই নির্দিষ্ট কোন ডাক্তার ছাড়া অন্য কারো পরামর্শে ওষুধ সেবন করবেন না।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত লেখা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *