AA রক্ত সংক্রান্ত

মানুষের শরীরে কত ব্যাগ রক্ত থাকে

মানব শরীরে রক্ত এমন একটি উপাদান যার ছাড়া মানব শরীর চলতে পারবে না। রক্তের মাধ্যমে মানুষের শরীরের প্রতিটি অঙ্গ কাজ করে এবং মানুষ সুস্থভাবে সবর ভাবে চলাফেরা এবং বেঁচে থাকতে পারে। একটি সুস্থ মানুষের শরীরে রক্ত থাকে সারে পাঁচ থেকে ছয় লিটার। আর এক ব্যাগ থাকে ৩৫০ থেকে ৪৫০ মিলিমিটার সমপরিমাণ রক্ত। এই রক্ত ছাড়া মানব শরীর একটি কাজও করতে পারে না এবং শরীরের ভেতরের হৃদপিন্ড থেকে শুরু করে যে সকল জিনিস রয়েছে সবকিছু রক্তের মাধ্যমে চলাচল করতে থাকে। 

কিডনির মাধ্যমে এই শরীরের রক্ত পরিশোধিত হয় এবং হার্ট বাতাসের মাধ্যমে নিশ্বাস গ্রহণ করে এবং নিঃশ্বাস ত্যাগ করার সময় রক্ত পরিশোধিত করে যার মাধ্যমে মানুষ সুস্থ সবল ভাবে নিঃশ্বাস নিতে পারে এবং সুস্থভাবে বেঁচে থাকতে পারে। অনেক সময় অনেক মানুষের শরীরে রক্ত কমতি দেখা দেয় এবং তখন অন্য মানুষের থেকে রক্ত সংগ্রহ করে তাদের শরীরে রক্ত প্রদান করা হয়। প্রতিদিন মাসের মধ্যে মানুষের শরীরে রক্ত পরিবর্তন হয় সেজন্য প্রতি তিন মাস পর পর মানুষ রক্ত অন্য মানুষকে দিয়ে দিতে পারে। 

যদি শারীরিক কোন সমস্যা না থাকে তাহলে মানুষ অন্য মানুষকে রক্তদানের মাধ্যমে তাকে সুস্থ করে তুলতে পারে। যেকোনো সমস্যায় যখন মানুষের রক্ত প্রয়োজন হয় তখন ভেবে নেয়া উচিত যে রক্তই হলো তার আসল ওষুধ যেটা ছাড়া তাকে কোন চিকিৎসা দিলেই সে সুস্থ হতে পারবেনা। অনেক সময় মানুষের রক্তের প্লাজমা থাকে না এবং অন্য মানুষের থেকে রক্ত সংগ্রহ করে রক্তের প্লাজমা গ্রহণ করতে হয়। দান করা রক্তের প্লাজমা বা রক্ত রসের অভাব পূরণ হয়ে যায় বেশি বেশি পানি পানের মাধ্যমে। 

কারণ আপনি যত বেশি পানি পান করবেন তত বেশি রক্ত পরিশোধিত হবে এবং রক্তের সমস্যা থাকলে সেগুলো দূর হবে। সেজন্য প্রতিদিন প্রতিটি মানুষকে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করা প্রয়োজন। আর রক্তের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো লোহিত রক্তকণিকা ১২০ দিন পর পর মানুষের শরীরের সক্রিয়ভাবেই প্রতিস্থাপিত হয়।মানব শরীরে রক্ত তিন প্রকার লোহিত রক্ত কণিকা শ্বেত রক্তকণিকা এবং অনুচক্রিকা। এই তিন ধরনের রক্তের মাধ্যমে মানব শরীরে সঠিকভাবে রক্ত উৎপন্ন হয় এবং মানুষ সঠিকভাবে চলাফেরা করতে পারে। অনেক সময় মানুষের রাতে ভাইরাসের কারণে নানা রকম সমস্যার সৃষ্টি হয় আবার অনেক সময় মানুষের ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে মুখ দিয়ে এবং নাক দিয়ে রক্ত বের হতে থাকে। 

যখন মানব শরীরের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয় তখন অতিরিক্ত কোষের মাধ্যমে রক্ত এবং অন্যান্য কোষকে নষ্ট করে দেয় যার ফলে মানুষের শরীরে রক্তের অভাব দেখা দেয়। ক্যান্সার রোগীদের অনেক সময় রক্তের প্লাজমা নিয়মিত প্রদান করা হয় যেন তারা সুস্থ থাকতে পারে কারণ তাদের শরীরের প্লাজমা কমে যায়। রক্তে ভাইরাস জনিত যে কোনো সমস্যা দেখা দিলে যত দ্রুত সম্ভব ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে এবং চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে কারণ মানুষের শরীরে অতিরিক্ত ভাইরাসের আক্রান্তের ফলে মানুষ মারা যায়। তবে দীর্ঘদিন যদি রক্তের ভাইরাস দূর করার জন্য চিকিৎসা গ্রহণ করা যায় তাহলে মানুষ সুস্থ হয়ে থাকতে পারে। 

অনেক সময় অনেক মানুষের শরীরে রক্তের অভাব দেখা দেয় তখন তাদের পর্যাপ্ত পরিমাণের পানি এবং পুষ্টিকর খাদ্যের মাধ্যমে রক্তের পরিমাণটি বৃদ্ধি করতে হয়। কারণ যদি পরিমাণ মতো রক্ত মানব শরীরে না থাকে তাহলে নানা রকম রোগের সৃষ্টি হয় এবং মানুষটি আস্তে আস্তে দুর্বল হয়ে যেতে থাকে সেজন্য প্রতিটা মানুষের শরীরে সাড়ে পাঁচ থেকে ছয় লিটার রক্ত থাকা খুবই বেশি প্রয়োজন।

সেজন্য যদি আপনি সুস্থ থাকতে চান তাহলে নিয়মিত রক্ত পরীক্ষা করুন এবং আপনার শরীরের ভেতরে যে সকল অঙ্গগুলো রয়েছে সবকিছু নিয়মিত চেকআপ করুন তাহলে দেখবেন আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন। যখনই আপনার রক্তে ভাইরাসজনিত কোন সমস্যা হবে তখনই আপনি আস্তে আস্তে অসুস্থ হয়ে পড়বেন এবং তা আপনি বুঝতেও পারবেন না সেজন্য আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে এবং যেকোনো লক্ষণ দেখা দিলেই দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করে চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত লেখা

Leave a Reply

Your email address will not be published.